শোবার ঘরের জন্য পরামর্শ


কোন কোন সময়ে ছোট ছোট জিনিসগুলিও আপনার ভাগ্যের চাকা ঘুরিতে পারে৷ বাস্তু শাস্ত্র আপনাকে দেখায়, আপনার শোবার ঘরের সামান্য একটি পরিবর্তন কীভাবে ধনাত্মক শক্তির বৃদ্ধি ঘটাতে পারে এবং এমনকি দম্পতিদেরও একে অপরের কাছে নিয়ে আসতে পারে৷

মুম্বই-এর একজন গৃহবধূ, সুনয়না মেহতা, তাঁর স্বামীর সঙ্গে সর্বদাই ঝগড়া করতেন৷ সেগুলি সবই ছিল সামান্য বিষয় তবে মাঝে মাঝে সেগুলি অগ্নিতে ঘৃতাহুতির কাজ করত৷ সেই সময়, সুনয়না একটা অস্বাভাবিক কাজ করেছিলেন – তিনি তাঁদের শোবার ঘরটিকে নতুন করে সাজিয়েছিলেন আর বেড বক্সে রেখে দেওয়া একটি ডিভিডি প্লেয়ার আর কিছু খারাপ হয়ে যাওয়া সিডি ফেলে দিয়েছিলেন৷ মেহতা জানিয়েছিলেন কীভাবে শীঘ্রই তাঁদের গৃহে দাম্পত্যের শান্তি পুনরায় ফিরে এসেছিল৷

সুনয়নার বাড়ি পরিষ্কার করার বিষয়টি যেকোন একটি সাধারণ বিষয় ছিল না৷ তাঁর শোবার ঘরটি পুনরায় সাজানোর সময়ে তিনি বাস্তু শাস্ত্রের বিধিগুলি অনুসরণ করেছিলেন৷ ‍”আমি দেওয়ালে টাঙানো একজন ক্রন্দনরতা মহিলার তৈলচিত্রও সরিয়ে দিয়েছিলাম‍”, তিনি বলেন৷

“বাস্তু শাস্ত্র হল ভারতীয় স্থাপত্য শিল্পের মহাজাগতিক বিজ্ঞান এবং এটি সম্পদ, সুখ এবং সমন্বয়ের জন্য একজন ব্যক্তির জীবনে প্রতিষ্ঠা আনয়নের জন্য সামঞ্জস্যপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টি করতে সাহায্যে করে৷ এটি হল একটি উত্তমতর জীবনের নিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে একটি ছন্দ এবং ভারসাম্য সৃষ্টি বিষয়ক,‍” মুম্বই-এর একজন বাস্তু পরামর্শদাতা এবং এই বিষয়টির উপর বইয়ের লেখক, ড. নিতীন পরমার বলেন৷

এখানে, আপনার শোবার ঘরটিকে একটি বিশ্রাম, আরাম করা এবং পুনরুজ্জীবিত হওয়ার স্থা্ন হিসাবে সর্বোৎকৃষ্টভাবে ব্যবহার করতে পারেন সেই বিষয়ে কীভাবে বাস্তু আপনাকে সাহায্য করতে পারে সেই বিষয়ে বলা হয়েছে৷

 

কোন দিকে?

ড. পরমার বলেন, ‍”আদর্শগতভবে, দক্ষিণ-পূর্ব দিকের শোবার ঘর গৃহ মালিকের জন্য উত্তম স্বাস্থ্য এবং উন্নতি আনয়ন করে এবং আয়ু বৃদ্ধি করে৷ বাড়ির উত্তর-পূর্ব অথবা দক্ষিণ-পূর্ব দিকে একটি শোবার ঘর রাখা এড়িয়ে যান৷ দক্ষিণ-পূর্বের শোবার ঘর দম্পতির মধ্যে ঝগড়ার সৃষ্টি করতে পারে৷ উত্তর-পূর্বের শোবার ঘর শারীরিক সমস্যার কারণ হতে পারে৷ শিশুদের শোবার ঘরটি সর্বোৎকৃষ্টি দিক হল বাড়িটির পূর্ব অথবা উত্তর পশ্চিম৷‍”

 

খাট রাখার স্থান

বাস্তু অনুসারে, আপনার খাটটিকে রাখতে হবে পূর্ব অথবা দক্ষিণ দিকে মাথা করে৷ অতিথিদের ঘরের খাটের মাথা পশ্চিম দিকে রাখা যেতে পারে৷ এছাড়াও, যদি আপনার খাটটি কাঠের তৈরী হয় তাহলে সেটি সর্বোৎকৃষ্ট হয়৷ একাত্মতা বৃদ্ধি করার উদ্দেশ্যে দম্পতিটির একটি ম্যাট্রেসে ঘুমানো উচিত, জোড়া লাগানো দুটি পৃথক ম্যাট্রেসে নয়৷

 

আয়না

একটি আয়না লাগানো ড্রেসিং টেবিল রাখার স্থানটিকে সতর্কতা সহকারে নির্বাচন করতে হবে৷

 

বাস্তু মতে, যেহেতু একজন ঘুমন্ত মানুষের শরীরের প্রতিফলন অশুভ, আপনার বিছানার সামনে একটি আয়না রাখা এড়িয়ে যান৷

 

যন্ত্রপাতিগুলি সরিয়ে দিন

শান্তি বিঘ্নিতকারী যেকোন বস্তুরই শোবার ঘরে কোন স্থান নাই৷ তাই, এখানে কোন টেলিভিশন রাখবেন না৷ যদি রাখতেই হয়, তাহলে সেটি আপনার বিছানার থেকে যথেষ্ট দূরে রাখা নিশ্চিত করুন৷ ‍”টেলিভিশনের পর্দাটির বিছার বিপরীতে একটি আয়না হিসাবে কাজ করা চলবে না৷

“শোবার ঘরে একটি কমপিউটার রাখা এড়িয়ে যান, অথবা একটি পার্টিশনের সাহায্যে সেটি দূরে রাখুন৷ কমপিউটার এবং মোবাইল ফোনগুলি হল উচ্চতর বৈদ্যুতিন চাপযুক্ত যন্ত্র এবং সেল ফোন, কমপিউটার এবং টেলিভিশনের তরঙ্গগুলি ক্ষতিকারক বিচ্ছুরণ নির্গত করে‍”, ড. পরমার বলেন৷

 

কোন রঙ করা হবে?

ঐতিহ্যশালী বাস্তু এবং ফেং সুই বিশেষজ্ঞ, ড. স্নেহাল দেশপান্ডে বলেন, ‍”রঙগুলি শুধুমাত্র আমাদের জীবনকেই রঙিন করে না, সেগুলি আমাদের মনের অবস্থা, স্বাস্থ্য এবং সুখকেও প্রভাবিত করে৷ আপনার শোবার ঘরের জন্য প্রায়-সাদা, বেবি পিঙ্ক অথবা ক্রিম রঙগুলি হল আদর্শ৷ গাঢ় রঙগুলি এড়িয়ে যান৷ ঘরটিকে সুসংগঠিত হতে হবে৷ আপনার শোবার ঘরটিকে পরিষ্কার এবং গোছানো অবস্থায় রাখুন‍”৷

 

অব্যবহার্য বস্তুগুলি সরিয়ে দিন

এছাড়াও, আপনার শোবার ঘরে, যে সকল বস্তুগুলি বছরের পর বছর যাবত ব্যবহার করা হয়নি, যেমন খারাপ হয়ে যাওয়া দেওয়াল ঘড়ি, হাত ঘড়ি, বৈদ্যুতিন সরঞ্জাম, ভেঙে যাওয়া শিল্পকর্ম অথবা যন্ত্রাদি রাখবেন না৷ অগোছালোভাব শক্তি প্রবাহের ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করে এবং বাড়িতে অসংগতির কারণ ঘটায়৷ তিনি বলেন, ‍”শোবার ঘরে জলের ফোয়ারা, অ্যাকোয়ারিয়াম এবং যুদ্ধের দৃশ্য এবং একাকী মহিলার ছবি রাখবেন না‍”৷

 

গন্ধচিকিৎসা

সুগন্ধ এবং সৌরভ খুবই শক্তিশালী হতে পারে এবং একজন ব্যক্তির মানসিক অবস্থা এবং শক্তির বৃদ্ধি ঘটাতে পারে৷ তাই আপনার ঘরটিতে তাজা সুগন্ধ থাকা নিশ্চিত করুন; আপনার শোবার ঘরটিতে সুগন্ধি মোমবাতি, সুগন্ধ ছড়ানোর ব্যবস্থা অথবা পুষ্পগুচ্ছ রাখুন৷ তাজাকারক জেসমিন অথবা ল্যাভেন্ডারের সৌরভ ব্যবহার করুন৷

দেশপান্ডের সৌজন্যে, দম্পতিরা এই পরামর্শটি গ্রহণ করতে পারেন – আপনাদের শোবার ঘরের দক্ষিণ-পশ্চিম কোণায় দুটি রোজ কোয়ার্টজ হার্ট রাখুন৷ এটি আপনাদের জীবনে সুখের সংযোজন ঘটাবে৷

 

আরও পরামর্শ

  • একটি গোলাকৃতি অথবা ডিম্বাকৃতি আকারের বিছানা এড়িয়ে যান৷
  • বিছানাটিতে সর্বদাই একটি মাথা রাখার ব্যবস্থা থাকতে হবে৷ ঘুমানোর সময়ে, কখনওই আপনার মাথার পিছন দিকে একটি জানালা খোলা রাখবেন না৷
  • বিছানার উপরে একটি গোলাকৃতি ছাদ রাখা এড়িয়ে যান৷
  • মাথার উপরে থাকা একটি বিমের নীচে কখনওই ঘুমাবেন না৷
  • দেওয়ালে কোন মৃত পূর্বপুরুষের ছবি টাঙিয়ে রাখা এড়িয়ে যান৷
  • শোবার ঘরে ঠাকুরের সিংহাসন রাখবেন না৷
  • সকল প্রকার ভাঙা অথবা চটা ওঠা বস্তু সরিয়ে দিন৷
  • ব্যবহার না করার সময়ে, সংলগ্ন টয়লেটের দরজা বন্ধ রাখুন৷
  • সপ্তাহে অন্তত একবার জলের সঙ্গে সামুদ্রিক লবণ মিশ্রিত করে ঘরটি মুছুন কারণ এটি ঋণাত্মক শক্তিকে অপসারিত করে৷

 

Was this article useful?
  • 😃 (0)
  • 😐 (0)
  • 😔 (0)

Comments

comments