কেন্দ্রীয় দল পশ্চিমবঙ্গ সরকার কে আরইআরএ(RERA) তে পক্ষ পরিবর্তনের জন্য চালনা/তাড়িত করে


কেন্দ্রীয় সরকার পরিকল্পনা করছে একটি দল পশ্চিম বঙ্গে পাঠাতে, যাতে রাজ্য সরকারকে, তার নিজস্ব আইন – পশ্চিমবঙ্গ হাউজিং ইন্ডাস্ট্রি রেগুলেশন অ্যাক্টটির বাস্তবায়ন অনুসরণ করে, রিয়েল এস্টেট (রেগুলেশন এবং ডেভেলপমেন্ট) অ্যাক্ট টি বাস্তবায়িত করার জন্য প্ররোচিত করতে পারে

এক আধিকারিক জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় সরকার খুব শীঘ্রই একটি দল পশ্চিমবঙ্গে পাঠাবে, যাতে সেই দলটি বাড়ির ক্রেতাদের স্বার্থ রক্ষা করতে, রিয়েল এস্টেট (রেগুলেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট )অ্যাক্ট ( RERA)এ পক্ষ পরিবর্তন করতে, পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে তাড়িত করতে পারে। এক কর্মকর্তা বলেন,যখন কেন্দ্র সরকার দেশে RERA বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করছে , তখন পশ্চিমবঙ্গ হাউজিং ইন্ডাস্ট্রি রেগুলেশন অ্যাক্ট, 2017 (এইচআইআরএ/HIRA), যা রাজ্য নিজেই বাস্তবায়িত করেছে, এটি ‘বেশ বিরক্তিকর’।

অভয় উপাধ্যায়, যিনি ফোরাম ফর পিপল’স কালেকটিভ এফোর্ট -এর সভাপতি, বললেন “ পশ্চিমবঙ্গ দেশের প্রথম রাজ্য, যেটি আরইআরএ( RERA)-র পরেও, বিল্ডারদের পক্ষে একটি পৃথক আইন তৈরী করেছে, যেটি আরইআরএ (RERA) 2016 নিয়মাবলী থেকে বিচ্যুত এবং তরলীকৃত। এটা বিরক্তিকর। একটি কমিটি শীঘ্রই রাজ্য পরিদর্শন করবে”। উপাধ্যায় চার সদস্যের একটি কমিটির অংশ যা পশ্চিমবঙ্গে পরিদর্শন করবে। তিনি বললেন, “এটি কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদের (সিএসি) একটি চার সদস্যের উপ-কমিটি, যারা রাজ্যের কর্মকর্তাদের সাথে সাক্ষাৎ্ করবে, এবং তারা উপভোক্তার স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়ে, আরইআরএ (RERA) কে বাস্তবায়িত করতে তাড়িত করবে । রাজ্যের জন্য নতুন আইনের কি প্রয়োজন ছিল তা আমরা বুঝতে পারছি না।”

উপ-কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ হলেন নিরঞ্জন হিরানন্দানি,  ন্যাশনাল রিয়েল এস্টেট ডেভেলপমেন্ট কাউন্সিলের (এনএআরইডিসিও/NAREDCO)সভাপতি, লেফটেন্যান্ট  জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) এস.কে. বাহ্রি, ফেডারেশন অফ এপার্টম্যান্ট ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান এবং গৌতম চাটার্জ্জী, মহারাষ্ট্রের আরইআরএ/RERA-র চেয়ারম্যান । গ্লোবাল রিয়েল এস্টেট কনসাল্টেন্সি ফার্ম ফ্রাঙ্ক নাইটের একটি সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে  বলা হয়েছে যে, কলকাতা দেশের একমাত্র বড় বাজার ছিল, যার মধ্যে আরইআরএ( RERA) কার্যকরী হয়নি I আরইআরএ(RERA) বাস্তবায়নের বিষয়ে পরামর্শ দেওয়ার জন্য কেন্দ্রীয় সরকার একটি সিএসি (CAC)গঠন করেছে।

 

রাজ্যের নগর উন্নয়ন মন্ত্রী সিএসি(CAC) এর চেয়ারপার্সন হবেন, এতে এনআইটিআই আয়োগ-এর কর্ণধার সহ কেন্দ্রীয় সরকারের আরো আটজন সদস্য থাকবে। উপাধ্যায় বলেন যে এইচআইআরএ (HIRA)  কোন পরামর্শ প্রক্রিয়া ছাড়াই চালু করা হয়েছিল, যেখানে আরইআরএ(RERA), কলকাতায় বেশ কয়েকটি পরামর্শসহ, কয়েক বছর ধরেই একটি ব্যাপক এবং কঠোর প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে গেছে। আরইআরএ (RERA)বোম্বে হাইকোর্টে আইনী স্ক্রুটিনিও পাশ করেছে , তিনি বলেন।

তিনি বলেন, আমরা এইচআইআরএ (HIRA)-তে আরইআরএ (RERA)-র মূল নিয়মাবলির দুটি গুরুতর ভুল খুঁজে পেলাম, যেটি 1লা জুন বিজ্ঞাপিত হয়েছিল। “প্রথমটি হল ‘বাহিনী গঠন’ বা অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতি যা একটি নির্মাতাকে তার বাধ্যবাধকতা পূরণে বাধা দেয়। আরইআরএ (RERA) পরিস্থিতিগুলির পরিষ্কারভাবে উল্লেখ করেছে : যুদ্ধ, বন্যা, খরা, আগুন, ঘূর্ণিঝড়, ভূমিকম্প বা অন্য কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ। এইচআইআরএ (HIRA) এই দফায় একটি গুরুত্বপূর্ণ সংযোজন করেছে,’ অথবা উল্লেখিত হতে পারে এমন যে কোন পরিস্থিতি’”। দ্বিতীয় বিচ্যুতি গ্যারেজ নিয়ে হয়। আরইআরএ (RERA)তে স্পষ্টভাবে বলা হয় যে একটি পার্কিংয়ের জন্য একটি ছাদ ও তিনদিকে দেওয়ালের প্রয়োজন কিন্তু উন্মুক্ত বা অনাচ্ছাদিত পার্কিং স্থান এর অন্তর্ভুক্ত হতে পারে না।  যাইহোক,এইচআইআর (HIRA) পার্কিং স্থান সংক্রান্ত দফাটি পুরোপুরি সরিয়ে দিয়েছে এবং বলেছে,সরকারী কর্তৃপক্ষ দ্বারা অনুমোদিত কোন পার্কিং স্থানকে গ্যারেজ হিসাবে নির্ধারিত করা হবে, তিনি বলেন।

 

Was this article useful?
  • 😃 (0)
  • 😐 (1)
  • 😔 (0)

Comments

comments